ক্রীড়ামন্ত্রী গোটা কোচিং স্টাফের পদত্যাগ চেয়েছেন

খেলা বার্তা

চলতি মাসের শেষ দিকে ঘরের মাটিতে বাংলাদেশের মুখোমুখি হবে শ্রীলঙ্কা। তিন ম্যাচের এই ওয়ানডে সিরিজের পরই দলের কোচিং স্টাফ পাল্টে ফেলতে পারে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড (এসএলসি)। দেশটির ক্রীড়ামন্ত্রী হারিন ফার্নান্দো নাকি এমনটাই চান। এমনটা ঘটলে বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের পরই শ্রীলঙ্কা দলে চান্দিকা হাতুরুসিংহের অধ্যায় শেষ হয়ে যেতে পারে।২০১৭ সালটি শ্রীলঙ্কা দলের জন্য মনে রাখার মতোই খারাপ গেছে। ২৯টি ওয়ানডে ম্যাচের ২৩টিতেই হেরেছে দলটি। সে ভরাডুবি থেকে টেনে তুলতেই বাংলাদেশ দলকে অসাধারণ সাফল্য এনে দেওয়া চান্দিকা হাতুরুসিংহের হাতে তুলে দেওয়া হয় লঙ্কান দলকে। হাতুরুসিংহের অধীনে শুরুটা ভালোই করেছিল শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশের মাটিতে টেস্ট, টি টোয়েন্টি সিরিজ জয়ের সাথে ত্রিদেশীয় সিরিজটাও জিতে নেয় লঙ্কানরা।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ জয় ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে টেস্ট জয়ও ছিলো বলার মতো সাফল্য। তবে সমস্যা শুরু হয় এর পর থেকেই। একের পর এক বাজে পারফরম্যান্স প্রদর্শন করতে থাকে লঙ্কান দল। পরিসংখ্যান ঘাটলে দেখা যায়, বিশ্বকাপের আগে হাতুরুসিংহের অধীনে ৪২টি ম্যাচ খেলেছে শ্রীলঙ্কা দল। যার মধ্যে ২৪টিতেই হেরেছে। জিতেছে ১৪টিতে, তিনটি ড্র আর একটি পরিত্যক্ত।ওয়ানডে বিশ্বকাপের ১২তম আসরেও ভালো করতে পারেনি দ্বিমুথ করুণারত্নের দল। পয়েন্ট টেবিলের ছয়ে থেকেই বিদায় নিতে হয়েছে গ্রুপ পর্ব থেকে।

সবমিলিয়ে এখন পর্যন্ত আহামরি কোনো সাফল্য এনে দিতে না পারায় এই লঙ্কান কোচের পদত্যাগের দাবিতে সরব লঙ্কানরা। অবশ্য শুধু সমর্থকরাই নন, গেল দেড় বছরে দলের বাজে পারফরম্যান্সের কারণে হাতুরুসিংহের উপরে হতাশ দেশটির ক্রীড়া মন্ত্রী হারিন ফার্নান্দোও। গত মার্চে দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে ওয়ানডে সিরিজ চলাকালে হাথুরুসিংহেকে হুট করেই দেশে ডেকে পাঠিয়েছিল লঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড।এবার বিশ্বকাপে আশানুরুপ পারফরম্যান্স না করায় লঙ্কান দলের কোচিং স্টাফদের নিয়ে নতুন করে ভাবছেন দেশটির ক্রীড়ামন্ত্রী। বিশ্বকাপে ভালো করতে পারলে হয়তো ভিন্ন কিছুই হতো। কিন্তু আপাতত শ্রীলঙ্কার ক্রীড়ামন্ত্রী হারিন ফার্নান্দো চান দলের কোচিং স্টাফে বদল।

বোর্ড প্রধান শাম্মি সিলভাও ক্রীড়ামন্ত্রীর ইচ্ছার বাইরে যেতে পারবেন বলে মনে হচ্ছে না। এ নিয়ে তার ভাষ্য, ‘আমরাও একই কথা ভাবছি। তবে দেশে ফিরে দেখি কী করা যায়। সবার আগে আমাদের মন্ত্রী মহোদয়ের সঙ্গে কথা বলতে হবে।’শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটে সরকারি হস্তক্ষেপের নজির কম নেই। এবারও তার প্রতিচ্ছবিই দেখা যাচ্ছে। তবে বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে এসব কোনো প্রভাব রাখবে না বলেই মনে করেন বোর্ড সভাপতি, ‘কোচিং স্টাফের বিষয়াদির সঙ্গে দলের কোনো সম্পর্ক নেই। কোচদের সঙ্গে খেলোয়াড়দের বেশি মাখামাখি থাকলেই কেবল এটি সমস্যা হয়ে দেখা দিতে পারে। আমার মনে হয় না সফরে এসব কোনো প্রভাব ফেলবে।’

হাতুরুসিংহের নেতৃত্বাধীন কোচিং স্টাফে ব্যাটিং কোচ হিসেবে আছেন জন লুইস আর ফিল্ডিং কোচ স্টিভ রিক্সন। লঙ্কান গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে জানা গেছে, মূলত হাতুরুসিংহেকে কেন্দ্র করেই ক্রীড়ামন্ত্রী গোটা কোচিং স্টাফের পদত্যাগ চেয়েছেন। তার চুক্তির মেয়াদ শেষ হতে এখনো ১৬ মাস বাকি। ২৬ জুলাই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজের প্রথম ওয়ানডে খেলবে বাংলাদেশ। ৩১ জুলাই শেষ হবে সিরিজ।