সমালোচনা কেন হচ্ছে কারণ খুঁজে পাচ্ছি না: পাপন

খেলা বার্তা

বিশ্লেষকদের অনেকেই মনে করছেন ক্রিকেট কূটনীতিতে পাকিস্তানের সঙ্গে হেরে গেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। তবে তা মানতে নারাজ বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

মঙ্গলবার দুবাইয়ে বাংলাদেশ ও পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের প্রধানরা সফর নিয়ে বৈঠকে বসেন। সেই মিটিংয়ে উপস্থিত ছিলেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) সভাপতি শশাঙ্ক মনোহর। আইসিসি সভাপতি দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক সিরিজ নিয়ে সমস্যার সমাধান করে দেন।

সভার সিদ্ধান্ত অনুসারে বাংলাদেশ দল জানুয়ারি, ফেব্রুয়ারি এবং এপ্রিল- এই তিন মাসে তিনবার পাকিস্তান সফর করবে। যে বাংলাদেশ নিরাপত্তা ইস্যুতে একবারের জন্যও পাকিস্তান সফরে যেতে চায়নি অথচ এখন তিন মাসে তিনবার পাকিস্তান সফরে যেতে রাজি হয়েছেন বিসিবি সভাপাতি। এতে ক্রিকেট কূটনীতিগত পরাজয় দেখছেন বিশ্লেষকরা।

তবে তা মানতে নারাজ বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। তিনি বলেছেন, আমরা বলেছি শুধু টি-টোয়েন্টি খেলে চলে আসতে চাই। তারপর একটা সময় (টেস্ট খেলতে) যাব। পাকিস্তানে গিয়ে তাদের মাঠে টেস্ট খেলার আগে আমাদের একটা প্র্যাক্টিস ম্যাচ দরকার। ওরা বলেছিল টি-টোয়েন্টি করা যায় কি না। টি-টোয়েন্টি হলে তাদের আর্থিক ক্ষতি (আয়) কিছুটা পোষাবে। তিনবার সফরে গেলে ওদের অনেক খরচ বাড়বে। হাতে পর্যাপ্ত সময়ও নেই যে ওরা মার্কেটিং করতে পারবে। আমাদের কাছে মনে হয়েছে টি-টোয়েন্টির চেয়ে একটা ওয়ানডে ম্যাচ হলে অনুশীলনটা ভালো হবে।

দুবাই থেকে দেশে ফিরে বুধবার বেলা ১১টার পর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে পাপন বলেন, আমি জানি না লোকজন কেন পাকিস্তানের সঙ্গে কূটনীতিগত পরাজয়ের কথা বলছেন। কেন সমালোচনা হচ্ছে তার কোনো কারণই খুঁজে পাচ্ছি না। আমার কাছে এটা অদ্ভুত লাগছে। ওরা কখনই বলেনি, আমরা টি-টোয়েন্টি খেলে আসব। ওরা প্রথমে বলেছে ফুল সিরিজ খেলতে হবে। পরে বলেছে আগে টেস্ট খেলতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আমরা যেটা বলেছি, আমার মনে হয় এটাই হয়েছে। আমি প্রথম মিডিয়াতে বলেছি যে, আমরা প্রথমে যাব টি-টোয়েন্টি খেলে আসব। পরে টেস্ট খেলব। সেটাই তো হচ্ছে।

আগামী ২৪ জানুয়ারি লাহোরে প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ দুটি হবে ২৫ ও ২৭ জানুয়ারি।

এরপর সফরে গিয়ে ৭-১১ ফ্রেব্রুয়ারি রাওয়ালপিন্ডিতে প্রথম টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ দল। তৃতীয় দফায় সফরে গিয়ে ৩ এপ্রিল করাচিতে একমাত্র ওয়ানডে আর ৫-৯ এপ্রিল করাচিতে দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ।