১০ মিনিটে ক্যান্সার নির্ণয়ের ফর্মুলা আবিষ্কারক কে সংবর্ধনা

জেলা বার্তা স্বাস্থ্য বার্তা

ড. আবু সিনা। রিসার্চ ফেলো, অস্ট্রেলিয়ান ইন্সটিটিউট ফর বায়োইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড ন্যানোটেকনোলজি, কুইন্সল্যান্ড ইউনিভার্সিটি, ব্রিসবেন, অস্ট্রেলিয়া। ভুতপুর্ব সহকারী অধ্যাপক, বায়োকেমিস্ট্রি এন্ড মলিকুলার বায়োলজি, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট। এই ব্যক্তিকে একজন প্রতিভাবান কিংবা গুণী বললে তাঁর সম্পর্কে কম বলা হবে। তিনি এমন এক যুগান্তকারী আবিষ্কার করেছেন, যা শুনে প্রতিটি বাংলাদেশী গর্ববোধ করবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। ডা. আবু সিনা তার গবেষণার মাধ্যমে মাত্র ১০ মিনিটে ক্যান্সার নির্নয়ের ফর্মুলা আবিস্কার করেছেন!

গতকাল শনিবার (২৭ জুলাই) সামাজিক সংগঠন “এসএসসি ৯৬ এইচ এস সি ৯৮” তাদের গুলশান অফিসে ক্যান্সার নির্ণয়ে আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন এই বাংলাদেশি তরুন গবেষক ডা. আবু সিনাকে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করেছে।প্রসঙ্গত, ডা. আবু সিনা ‘এসএসসি ৯৬ এইচএসসি ৯৮ সোসাইটি’র একজন সদস্য এবং এই সোসাইটি তথা বাংলাদেশের একজন রত্ন। তার এই যুগান্তকারী আবিস্কারের ফলে খুব অল্প খরচে এবং অতি প্রাথমিক স্টেজে ক্যান্সার সনাক্ত করে রোগীর চিকিৎসা করা সম্ভব হবে। ইতোমধ্যে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে তাঁর এই আবিস্কার সারা দুনিয়ায় বেশ আলোচিত হয়েছে।‘এসএসসি ৯৬ এইচএসসি ৯৮ সোসাইটি’র বন্ধুরা তাঁর এই যুগান্তকারী আবিস্কারের স্বীকৃতি স্বরুপ সোসাইটির পক্ষ থেকে গতকাল শনিবার (২৭ জুলাই) সম্মানসুচক ক্রেস্ট, সনদ এবং উপহার প্রদান করে। উক্ত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের সভাপতি ছিলেন সোসাইটির চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার হাফিজ খান। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক আল মাসুদ খান।এছাড়া উক্ত অনুষ্ঠানে সোসাইটির ভাইস চেয়ারম্যান কামরুল হাসান, সমাজ কল্যান সম্পাদক সারোয়ার লিমন, দপ্তর সম্পাদক তানজির, কোষাধ্যক্ষ নাহিদ, লিগ্যাল এডভাইজার ব্যারিস্টার সৌমিত্র সহ সোসাইটির এক্সিকিউটিভ বডির সদস্য এবং বেনিফিসিয়াল মেম্বারগণ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে ডা. আবু সিনা জানান, এই আবিস্কারের ফলে ক্যান্সার সনাক্ত করার জন্য আর বায়াপসি করার প্রয়োজন পড়বে না। সাধারণ ব্লাড টেস্টের মতোই ব্লাডের মাধ্যমে ক্যান্সারের টেস্ট করা সম্ভব হবে। এতে খরচ আর সময়ের অনেক সাশ্রয় হবে এবং প্রাথমিক স্টেজে ক্যান্সারকে নিরাময় করা সম্ভব হবে।এসময় সোসাইটির চেয়ারম্যান বলেন, ডা. আবু সিনা শুধুমাত্র ৯৬-৯৮ সোসাইটির গর্ব নয়, তিনি বাংলাদেশের গর্ব। আমরা আশাবাদী তিনি আরো বড় হবেন এবং মানবকল্যানে কাজ করে চলবেন।পরিশেষে সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক বলেন, কিছু কিছু মানুষকে সম্মানিত করলে নিজেদেরই সম্মান বেড়ে যায়। আর এটা আমাদের জন্য অত্যন্ত গর্বের বিষয়ও বটে। তাই আমাদের ‘এসএসসি ৯৬ এইচএসসি ৯৮ সোসাইটি’র বন্ধু ডা. আবু সিনা কে সংবর্ধনা দিয়ে আজ আমরা আমাদের সোসাইটিকেই সংবর্ধনা দিলাম।

সূত্রঃ বার্তাবাজার।