এইচএসসি পাস করেই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক!

অপরাধ জেলা বার্তা

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে আরও এক ‘ভুয়া ডাক্তারকে’ আটক করেছে র‌্যাব-১১। সোমবার (২৯ জুলাই) রাতে সিদ্ধিরগঞ্জের চিটাগাং রোড এলাকার হক সুপার মার্কেটে অবস্থিত নিউ মুক্তি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়।আটককৃত মো. মোস্তাক আহম্মেদ (করিম) ওরফে এম এ করিম বশির (৪৩) কুষ্টিয়া জেলার সদর থানার কুমারখালী এলাকার রহিম মণ্ডলের ছেলে।

র‌্যাব জানায়, এম এ করিম বশির নিজেকে এমবিবিএস (ডি-অর্থো), পিজিটি (ডি-অর্থো), পিজিটি (ইমনটি ও হৃদরোগ) দাবি করে দীর্ঘদিন ধরে রোগী দেখে আসছিলেন। পাশাপাশি তিনি নিজেকে সিকদার গ্রুপের চিফ মেডিক্যাল অফিসার এবং ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের হাড় জোড়া, বাত ব্যথা, মেরুদণ্ড বিশেষজ্ঞ দাবি করে আসছিলেন। তার কাছ থেকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের ভিজিটিং কার্ড ও রোগী দেখার প্রেসক্রিপশন প্যাড উদ্ধার করেছে র‌্যাব।র‌্যাব-১১’র অপারেশন অফিসার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জসিম উদ্দীন চৌধুরী স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ওই তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

তিনি জানিয়েছেন, মোস্তাক স্থানীয় কলেজ থেকে ১৯৮৯ সালে এইচএসসি পাস করার পর দীর্ঘ এক যুগ ধরে নিজেকে এমবিবিএস (ডি-অর্থো), পিজিটি (ডি-অর্থো), পিজিটি (ইমনটি ও হৃদরোগ) বিশেষজ্ঞ দাবি করে বিভিন্ন প্রাইভেট হাসপাতালে রোগী দেখে আসছিলেন।মো. জসিম উদ্দীন চৌধুরী আরও জানান, ডা. মো. মোস্তাক আহম্মেদ এবং আটককৃত মোস্তাক আহম্মেদ এক ব্যক্তি নন, তা আটক ব্যক্তি নিজেও স্বীকার করেছেন। কেবল নামের সাথে মিল থাকায় ডা. মোস্তাক আহম্মেদের নাম ও বিএমডিসি কর্তৃক রেজিস্ট্রেশন নম্বর-২৬৬৩৩ ব্যবহার করে তিনি রোগী দেখে আসছিলেন।তার বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানান তিনি।