৩৩ ঘণ্টার অস্ত্রোপচারে জোড়া মাথা যমজ দুই বোনকে পৃথক

বিবিধ

প্রায় ৩৩ ঘণ্টার অস্ত্রোপচারের পর জোড়া মাথার যমজ দুই বোন রাবেয়া ও রুকাইয়াকে পৃথক করা হয়েছে গত শুক্রবার। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত তাদের অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে।চিকিৎসকরা গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, তারা সুস্থ ও ভালো আছে।রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) অস্ত্রোপচার করার পর আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এ ধরনের অস্ত্রোপচার অত্যন্ত জটিল এবং সাফল্যের হার খুব বেশি নয়। অস্ত্রোপচারের পর রাবেয়া এবং রুকাইয়ার অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে। তবে এ ধরনের অস্ত্রোপচারের পরও সব সময় ঝুঁকি এবং বেশ জটিলতা থাকে।

দুই বোনের বিদেশে কয়েকটি অস্ত্রোপচারের পর সবচেয়ে জটিল অস্ত্রোপচার ‘যমজ মস্তিস্ক’ আলাদা করার কাজটি ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে সম্পন্ন হয়। হাঙ্গেরির বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে সিএমএইচের নিউরো অ্যানেসথেশিওলজিস্টদের তত্ত্বাবধানে নিউরো ও প্লাস্টিক সার্জনরা ঢাকা মেডিকেল কলেজ, শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউট, হার্ট ফাউন্ডেশন, নিউরো সায়েন্স ইনস্টিটিউট, সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল ও শিশু হাসপাতালের শতাধিক সার্জন ও অ্যানেসথেশিওলজিস্ট এই জটিল অস্ত্রোপচারে অংশগ্রহণ করেন।

এ ধরনের অস্ত্রোপচার বিশ্বে বিরল ঘটনা। উপমহাদেশে এরকম অস্ত্রোপচার এটিই প্রথম। এই অস্ত্রোপচার সিএমএইচে সম্পন্ন হওয়ায় বাংলাদেশের চিকিৎসা ব্যবস্থার সক্ষমতা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় পাবনার চাটমোহরের রফিকুল ইসলাম ও তাসলিমা বেগম দম্পতির এই দুই শিশুসন্তান ২০১৭ সাল থেকেই সামগ্রিক সহায়তা পেয়ে আসছিল। হাঙ্গেরি সরকারের মাধ্যমে ‘অ্যাকশন ফর ডিফেন্সলেস পিপল’ নামক সংগঠনও সক্রিয় সহায়তা প্রদান করেছে।