পাকিস্তানে পরমাণু হামলা চালাবে ভারত!

আন্তর্জাতিক রাজনীতি বার্তা

পাকিস্তানে পরমাণু হামলা চালানোর প্রচ্ছন্ন হুমকি দিয়েছে ভারত। আর তা দিয়েছেন দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। দুই দেশের মধ্যে কাশ্মির নিয়ে উত্তেজনার প্রেক্ষাপটে এই হুঁশিয়ারি দেয়া হলো।

ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং শুক্রবার জানিয়েছেন, ভারত প্রথম পরমাণু অস্ত্র প্রয়োগের পক্ষে নয়। পাশাপাশি তিনি জানিয়েছেন, ‘‘ভবিষ্যতে কী হবে তা নির্ভর করবে পরিস্থিতির উপরে।” একথা শুক্রবার রাজস্থানের পোখরানে জানালেন তিনি। ভারতের দু’টি পরমাণু পরীক্ষা এই পোখরানেই হয়েছিল। সেখানে তিনি সাংবাদিকদের জানান, ‘‘ভারতকে পারমাণবিক শক্তিশালী করে তোলা আমাদের দৃঢ় সংক‌ল্প ছিল এবং এখনো আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ ‘নো ফার্স্ট ইউজ’ সম্পর্কে। এটাই সত্যি এখন পর্যন্ত। ভারত এই নীতির প্রবল সমর্থক। ভবিষ্যতে কী হবে তা নির্ভর করবে পরিস্থিতির উপরে।” এক আর্মি স্কাউটস-মাস্টার প্রতিযোগিতার সমাপ্তি অধিবেশনে এসে এই কথা জানান রাজনাথ।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে তাকে শ্রদ্ধাজ্ঞাপনের সময় এই কথা বলেন তিনি। ১৯৭৪ ও ১৯৯৮ সালে ভারত এখানে পরমাণু পরীক্ষা করেছিল। পোখরান-২ হয়েছিল বাজপেয়ীর তৎকালীন বিজেপি সরকারের আমলে।ভারতকে পরমাণু শক্তিধর করে তুলতে চেয়েছিলেন অটলবিহারী বাজপেয়ী, একথা স্মরণ করিয়ে রাজনাথ বলেন, ভারত এখনো ‘নো ফার্স্ট ইউজ’-এর পক্ষে।

রাজনাথের এদিনের মন্তব্যকে অনেকেই পাকিস্তানের প্রতি প্রচ্ছন্ন হুঁশিয়ারি হিসেবেই দেখছেন। জম্মু ও কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বাতিল করে তাকে দু’টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে বিভক্ত করার বিল লোকসভায় পাস হওয়ার পর পাকিস্তান ও ভারতের রাজনৈতিক সম্পর্কে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে।

ভারত বারবার জানিয়েছে, এটা দেশের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। এতে অন্য কোনো দেশের হস্তক্ষেপ কাম্য নয়। কিন্তু পাকিস্তান এরই মধ্যে জাতিসঙ্ঘের কাছে এই নিয়ে হস্তক্ষেপের জন্য আবেদন জানিয়েছে।ফেব্রুয়ারিতে পুলওয়ামা হাম‌ার পর থেকেই ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে সম্পর্কে আরো অবনতি হয়েছে।
সূত্র : নয়া দিগন্ত।