জম্মু-কাশ্মীরে কারফিউ নেই, খুলছে স্কুল-কলেজ

আন্তর্জাতিক

ভারতের জম্মু-কাশ্মীরে সরকারি অফিস খুলেছে শনিবার (১৭ আগস্ট)। সোমবার থেকে বন্ধ থাকা স্কুল-কলেজও খোলা থাকবে। গত ১২ দিনের কারফিউয়ের মধ্যে কোনও প্রাণহানি না হওয়া এবং ঈদ ও স্বাধীনতা দিবসে বড় বিক্ষোভ না হওয়ায় ধাপে ধাপে বিধি-নিষেধ তোলার ইঙ্গিত দিয়েছে প্রশাসন। রোববার সকালে চালু হবে ল্যান্ডলাইন সেবাও।সাংবাদিক সম্মেলনে জম্মু-কাশ্মীরের মুখ্যসচিব বিভিআর সুব্রহ্মণ্যম বলেন, ‘সম্ভাব্য জঙ্গি হানার গোয়েন্দা তথ্য পেয়ে কাশ্মীরে কিছু সতর্কতামূলক পদক্ষেপ করা হয়। এখন পর্যায়ক্রমে তা তুলে নেওয়া হবে।’

সংসদে ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাদ দেওয়ার আগ থেকেই উপত্যকা নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেওয়া হয়। জারি হয় কারফিউ। গ্রেফতার ও গৃহবন্দী করা হয় রাজনৈতিক নেতাদের। শুক্রবারও কংগ্রেস নেতা গুলাম আহমেদ মিরকে গৃহবন্দী করা হয়েছে। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ কাশ্মীর নিয়ে রুদ্ধদ্বার ঘরোয়া আলোচনা সেরেছে। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান তার আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ফোন করে কাশ্মীর নিয়ে নিজেদের ব্যাখ্যা শুনিয়েছেন।ঈদ ও স্বাধীনতা দিবসে উপত্যকায় শান্তি থাকায় বিধিনিষেধ তোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মোদী সরকার। শনিবার সকালে দিল্লির সঙ্গে কথা বলেন কাশ্মীর প্রশাসনের শীর্ষ কর্তারা।

সূত্রের খবর, ধাপে ধাপে কারফিউ তুলে নেওয়ার পরামর্শ দেয় কেন্দ্র। সেই মতো আজ ২২টি জেলার ১২টি থেকে কারফিউ তুলে নেওয়া হয়েছে।মুখ্যসচিবের দাবি, ‘জেলাগুলিতে আজ স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ফিরেছে। তবে এর মধ্যে পাঁচটিতে রাত্রে কারফিউ থাকছে। চলেছে যাত্রীবাহী বাসও।ল্যান্ডলাইন পরিষেবা ফেরার আশ্বাস দিলেও মোবাইল ও ইন্টারনেট সংযোগ প্রসঙ্গে মুখ্যসচিব বলেন, ‘সন্ত্রাসের চক্রান্তে জঙ্গিদের কাছে মোবাইলের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। সব দিক খতিয়ে দেখে পর্যায়ক্রমে ওই পরিষেবা ফেরানো হবে।’তবে এখনই রাজনৈতিক বন্দীদের মুক্তির প্রতিশ্রুতি দেওয়া হচ্ছে না। মুখ্যসচিব শুধু বলেন, ‘সতর্কতামূলক গ্রেফতারের বিষয়টি ধারাবাহিক ভাবে পর্যালোচনা করা হবে।’