কী ক্ষতি হবে এই পৃথিবীর, মানুষ যদি এখান থেকে বিলুপ্ত হয়ে যায়?

বিবিধ

বর্তমান পৃথিবী যে ভারসাম্যপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে, যে ভারসাম্যপূর্ণ অবস্থার কারণে এখানে আমরা বেঁচে রয়েছি এবং আমাদের সভ্যতার প্রসার ঘটেছে, সেই ভারসাম্যপূর্ণ অবস্থা যদি পৃথিবীর বিনষ্ট হয়ে যায়, তাহলে তাতে করে পৃথিবীর কি সমস্যা? এখান থেকে ৬৫ মিলিয়ন বছর আগে বিরাট এক গ্রহাণু পৃথিবীতে এসে ধাক্কা খেয়েছিলো। মূলত যে কারণে দুই কোটি বছর ধরে সমস্ত পৃথিবীর উপর আধিপত্য করা ডাইনোসরের বিলুপ্তি ঘটে। সেখানে হোমো স্যাপিয়েন্সের বয়স মাত্র দুই লাখ বছর। কী ক্ষতি হবে এই পৃথিবীর, মানুষ যদি এখান থেকে বিলুপ্ত হয়ে যায়? পৃথিবীতে মানুষের টিকে থাকা না থাকার উপর পৃথিবীর কোনো লাভ-ক্ষতির কারণ হয় না। সত্য কথা হলো আমাদের অস্তিত্বের কারণে পৃথিবী নয়, বরং পৃথিবীর অস্তিত্বের কারণে কিংবা পৃথিবীর একটি বিশেষ অবস্থায় থাকার কারণে আমাদের অস্তিত্ব এখানে সম্ভবপর হয়েছে। যে বাস্তুসংস্থানের কারণে এখানে আমাদের অস্তিত্ব সম্ভব হয়েছে, সেই বাস্তুসংস্থান পুরোপুরিভাবে বিনষ্ট হলে আমরা এই পৃথিবী থেকে নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবো।

জ্ঞান-গরিমা কিংবা শ্রেষ্ঠত্বের গর্ব-অহংকার, আমাদের বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করতে পারবে না। তাতে করে পৃথিবীর কিচ্ছু যায় আসবে না, অন্তত পক্ষে আরও পাঁচশ কোটি বছর পৃথিবী যেকোনো অবস্থায় হয়তো এই অবস্থানে টিকে থাকবে। কেননা বিজ্ঞানীরা হিসেব করে দেখেছেন আমাদের এই দ্বিতীয় প্রজন্মের সূর্যের জ্বালানি ফুরিয়ে যেতে এখনো ৫০০ কোটি বছর বাকি।পৃথিবীর ২০ শতাংশ অক্সিজেনের যোগানদাতা, এই গ্রহের ফুসফুস বলা হয় যাকে, সেই আমাজন জ্বলে পুড়ে ছারখার হয়ে যাচ্ছে। চরম দুর্যোগপ্রবণ আমাদের এই বঙ্গীয় বদ্বীপকে যে সুন্দরবন শত সহ¯্র বছর ধরে বুক দিয়ে আগলে রেখেছে সেই সুন্দরবনকে কার্যত আমরা বিদেশি কর্পোরেট কোম্পানির কাছে বিক্রি করে দিয়েছি।

সারা পৃথিবীর সঞ্চিত বরফ গলে যাচ্ছে, বৃষ্টিবহুল বনাঞ্চল নেই হয়ে যাচ্ছে, আফ্রিকার জঙ্গল কেটে সাফ করে দেয়া হচ্ছে, টিলা পাহাড় জ্বালিয়ে-পুড়িয়ে শহর জনপথ তৈরি করে ফেলা হচ্ছে। মোটকথা পৃথিবী আমাদের বসবাসের অনুপযোগী হয়ে যাচ্ছে আমাদের চোখের সামনেই এবং আমরাই তাকে ধ্বংস করে ফেলছি। এই মহাবিশ্বে অন্য কোনো বুদ্ধিমান প্রাণীর সন্ধান আমরা আজও পাইনি কেন? সম্ভবত এ প্রশ্নের হাজারটা উত্তর রয়েছে, কিন্তু একজন মনীষী বলেছিলেন… বুদ্ধিমত্তা সম্ভবত একটা নির্দিষ্ট স্তর পার করলে আত্মহত্যাপ্রবণ হয়ে ওঠে। অর্থাৎ তারা তাদের নিজেদের সভ্যতা নিজেরাই ধ্বংস করে দেয়।