নারীদের ফ্যাশনের কথা চিন্তা করে মাস্কের নতুন ডিজাইন

বিবিধ

র্ঘদিন লকডাউনে ঘরবন্দি থাকার পর শুরু হয়েছে কর্মব্যস্ততা। নিজ নিজ কর্মস্থলে ফিরছেন অনেকেই। তবে করোনার তাণ্ডব কমলেও এর থেকে রেহাই পাওয়া এতো তাড়াতাড়ি সম্ভব না। কারণ এখন এর প্রতিরোধে কোন কার্যকরী ভ্যাকসিন আসেনি বাজারে। এমন পরিস্থিতিতে বাড়ির বাইরে যেতে হলেও চলতে হচ্ছে মাস্ক পরে।
এবার ফ্যাশন সচেতন নারীদের কথা চিন্তা করে ব্যতিক্রমধর্মী মাস্কের ডিজাইন করেছেন শীর্ষস্থানীয় ডিজাইনাররা। যে মাস্ক আড়ালে দেখা যাবে নারীদের লিপস্টিক রাঙা ঠোঁট।

চাইলে খেতে পারবেন চুমুও।যদিও এমন পদক্ষেপে স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি মাথায় রেখে এনিয়ে আপত্তি করেছে কয়েকজন ফ্যাশন ডিজাইনার। এই আপত্তিকে কোন পাত্তাই দেননি ফ্যাশন ব্লগার ভবদ্বীপ কৌর। বরং নিজ মেহেদি অনুষ্ঠানে মাস্ক দিয়ে মুখ অলঙ্কৃত করে সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। তিনি বেছে নিয়েছিলেন ঝলমলে হলুদ লেহেঙ্গা এবং তার সঙ্গে মানানসই একটি মাস্ক।

জানা গেছে, এবার পূজায় সকলকে চমকে দিয়ে স্বচ্ছ (ট্রান্সপারেন্ট) মাস্ক তৈরি করা হয়েছে। সুরক্ষা মেনে এই মাস্ক করোনাকে দূরে রাখার পাশাপাশি ইচ্ছে মতো ঠোঁটে রাঙানো যাবে বিভিন্ন রঙে। যা ঠোঁটের অংশটা স্বচ্ছ থাকায় পরতে পারবেন পছন্দসই লিপস্টিক। করোনাকালে এ বার পূজায় ঠোঁট খোলা রাখতে আর বাধা থাকলো না। ভারতে মাস্কটি প্রথম তৈরি করেছেন ফ্যাশন ডিজাইনার অভিষেক দত্ত। তিনি বললেন, পূজার জন্য লাল-সাদা কম্বিনেশনে মাস্ক তৈরি করছি আমি। ছেলেদের জন্য থাকছে লেদারের মাস্ক।

পূজা মানেই শাড়ি, সেই কথা মাথায় রেখে ব্লাউজ, মাস্ক আর হাতের গ্লাভসকে এক ফেব্রিকে রাখা হচ্ছে। প্রিন্টেড লিনেন আর কটনের থ্রি লেয়ার্ড মাস্ক এ বার পূজার ফ্যাশনে বড় জায়গা করে নিচ্ছে। এদিকে, মাস্ক নিয়ে সারা বিশ্বে চলছে নানা পরীক্ষা। আমেরিকার বস্টন ম্যাগাজিন প্রকাশ করেছে কিছু মাস্কের ছবি। এগুলো একটি প্রতিযোগিতার জন্য কিছু স্থানীয় ডিজাইনারদের নকশা করা। এগুলোর কোনওটাই উঠে এসেছে সুতোর কাজ, কোথাও আবার মুখ সেজেছে অ্যাপ্লিকের ছোঁয়ায়।

সূত্র- আনন্দবাজার পত্রিকা